আটলান্টায় বাঙালির বর্ণাঢ্য পিঠা উৎসব অনুষ্ঠিত

0
242

জর্জিয়া বাংলা প্রতিবেদনঃ জর্জিয়া রাজ্যের আটলান্টায় বর্ণাঢ্য আয়োজনে প্রবাসী বাঙালিরা শীতের প্রথম পিঠা উৎসবে মেতে ওঠেছিল গত ৭ জানুয়ারি রোববার বার্কমার হাই স্কুল মিলনায়তনে। আর এটির আয়োজক ছিল জর্জিয়া সোশ্যাল এন্ড কালচারাল অর্গানাইজেশন।

বাইরের কনকনে ঠাণ্ডার বৈরী আবহাওয়ার মধ্যেও বংশ পরাম্পরার প্রাণের এই উৎসবে হরেক রকম পিঠার আস্বাদে প্রবাসী বাঙালি খুঁজে পেয়েছিল প্রিয় মাতৃভূমিকে।

পিঠা উৎসবে আমন্ত্রিত ক্লোজ আপ ওয়ান শিল্পী শেফালী সারগাম

বিকেল থেকে অনুষ্ঠান প্রাঙ্গনে স্বদেশের রকমারী পণ্যের সমাহারে সজ্জিত বিভিন্ন স্টলে বিকিকিনির সরব আনাগোনা শুরু হলেও উৎসবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হয় সন্ধ্যে সাড়ে সাতটায় বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় সংগীত পরিবেশনার মধ্য দিয়ে। এসময় আয়োজক সংগঠনের সভাপতি মোহন জব্বার স্বাগতিক ভাষণ প্রদান করেন। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সংগঠনের উপদেষ্টা দিদারুল আলম গাজী, স্থানীয় ডেমোক্র্যাটিক পার্টির মূলধারার নেতা আইনজীবী স্টিভেন র‍্যালী, জর্জিয়া ডিসট্রিক্ট-৭ আসনের কংগ্রেসম্যান পদপ্রার্থী ডেভিড কিম প্রমুখ।

ফ্লরিডা থেকে আগত শিল্পী পাপ্পু

সাধারণ সম্পাদক উত্তম দে’র সার্বিক তত্ত্বাবধানে গ্রাম বাংলার নানা বৈচিত্রের পিঠা তৈরি করে প্রবাসী ললনারা এই উৎসবে উপস্থাপন করলে সকলেই সেসবের আস্বাদ গ্রহণ করেন। সজ্জিত পিঠাগুলির মধ্যে ছিল তেলের পিঠা, দুধ চিতই, পাটি সাপটা, দুধ খেজুর, সূর্যমুখী, ডালপাতা, ছাচের পিঠা, ফুল ঝুড়ি, ডিমের পিঠা, মাছ পিঠা, মেরা পিঠা, পুলি পিঠা, পাকন পিঠাসহ নানা সুস্বাদু পিঠা। বাঙালির প্রিয় চা-বিস্কিট ও ঝাল-মুড়ি ছিল বাড়তি আয়োজন।

পিঠা উৎসবের দর্শক শ্রোতা

সংগঠক শহিদুল ইসলাম ঠান্ডুর তত্ত্বাবধানে আয়োজিত মেলা প্রাঙ্গনে ছিল স্বদেশী পণ্যের বেশ কয়েকটি স্টল। এসব স্টলে ছেলেবুড়ো শিশু কিশোর ও বড়দের পাঞ্জাবী থেকে শুরু করে মহিলাদের শাড়ি, সালোয়ার, কামিজ ও চুড়ি গহনা প্রসাধনীসহ নানা পণ্য সামগ্রীর আয়োজন ছিল। প্রবাসীরা প্রাণ ভরে ‘স্বদেশী পণ্য কিনে হয়েছে ধন্য’ এসময়।

পিঠা উৎসবে অংশগ্রহণকারী আশিস দম্পতি

সবচাইতে আকর্ষণীয় পর্ব গানের আসরে বাংলাদেশের জনপ্রিয় ক্লোজ আপ ওয়ান শিল্পী শেফালী সারগাম বেশ কিছু মন কেড়ে নেয়া গান গেয়ে দর্শক শ্রোতাদের চিত্ত জয় করেন। শেফালী ছাড়াও প্রতিবেশী রাজ্য ফ্লোরিডা থেকে আসা অতিথি শিল্পী পাপ্পু আহমেদের গানও জমিয়ে রেখেছিল সংগীত পাগল দর্শকদের।

কমিউনিটি সংগঠকদের আড্ডা

অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে রাফেল ড্র অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রথম পুরস্কার ৫৫ ইঞ্চি এলইডি টেলিভিশন জিতে নেন হুমায়ুন আহমেদ, দ্বিতীয় পুরষ্কার ল্যাপ টপ পান নুরুল তালুকদার নাহিদ। রাফেল ড্র’তে রাইস কুকারসহ আরও ১৩ টি আকর্ষণীয় পুরষ্কার দেয়া হয় বিজয়ীদেরকে ।অনুস্ঠানটির সঞ্চালনা করেন ভাস্কর চন্দ।

উৎসবের আনন্দে বাঙালি ললনা

পুরো আয়োজনটির মুখ্য স্পনসর ছিলো এমএন্ডজে ফাউন্ডেশন। এমএন্ডজে’র চেয়ারম্যান জামিল ইমরান অনুষ্ঠানে অনুস্পস্থিত থাকায় প্রতিনিধি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মোস্তফা জাহিদ টিটু ও হৈমন্তী বড়ুয়া।

আয়োজক সংগঠন জর্জিয়া সোশ্যাল এন্ড কালাচারাল অর্গানাইজেশনের কর্মকর্তাবৃন্দ

সমগ্র অনুষ্ঠানের অন্যান্য সহযোগীরা ছিলেন নেহাল মাহমুদ, শেখ জামাল, আবু নাসের মিলন, নুরুল তালুকদার নাহিদ, মিনহাজুল ইসলাম বাদল, আবুল হাশেম, ইলিয়াস হাসান রানা, কায়েদুজ্জামান, রাশেদ চৌধুরী, সাগর চক্রবর্তী, সৈয়দ কামরান, রতন দাশ, আবুল হাসান, হাসান খান প্রমুখ সংগঠক।

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

*