আটলান্টার জামালপুরবাসিদের আনন্দঘন বনভোজন অনুষ্ঠিত

সাংস্কৃতিক প্রতিবেদকঃ গত কয়েকদিনের টানা ভ্যাপসা গরম আর কড়া রোদ্দুরে যুক্তরাষ্ট্রের আটলান্টা শহরের নাগরিক জীবনে চলছিল এক অসহনীয় পরিস্থিতি। আদ্রতার মাত্রা বেড়ে যাওয়ায় বাইরে বেরুলেই ঘেমে আসছিলো শরীর। প্রবাসী বাংলাদেশিদের কাছে তখন মনে হচ্ছিল, এ যেন স্বদেশের চেনাজানা সেই অসহ্য গরম। দেশের মত এখানেও প্রচণ্ড তাপদাহে জামা কাপড় ঘেমে নেয়ে সাড়া। অথচ জর্জিয়া রাজ্যে সব সময় এমনটি হওয়ার কথা নয়।  আর তাই হঠাৎ করেই গেল উইক এন্ডের দু’টো দিন জুড়ে ঝরঝরে স্বস্তির আবহাওয়া এসে শরীর-মনকে জুড়িয়ে দিল। ঝির ঝিরে মৃদুমন্দ সুবাতাস ঠিক যেন উড়ে এসে জুড়ে বসলো এই শহরে। মন মেজাজটা আবারও চাঙা হয়ে ওঠলো। সামারের শেষ মুহূর্তের এই রকম এক ভালো লাগা আবহাওয়ায় পরশেই গত ৩০ জুলাই রোববার আটলান্টার জামালপুর প্রবাসীরা মেতে ওঠেছিল বনভোজনের আনন্দে।

শহর থেকে প্রায় চল্লিশ মাইল দুরের বিউফোর্ড ড্যাম সংলগ্ন লেকের পাশের ছায়া সুনিবিড় নিসর্গে ঘেরা পার্কে জমে ওঠা এই প্রীতি বনভোজনে জামালপুর জেলার প্রায় দেড়শত নারী-পুরুষ, শিশুকিশোর অফুরান উচ্ছ্বাসে কিছুটা ভালো সময় কাটিয়ে গেল।

বনভোজনে সারাদিন ধরেই শিশুকিশোররা লেকে সাঁতার কাটা, দৌড়াদৌড়ি, ছুটাছুটিতে ছিল উচ্ছল। আর প্রাণ খুলে চুটিয়ে আড্ডা দিয়ে সুন্দর সময় কাটিয়েছে অভিভাবকরা। এছাড়া ধূমায়িত গ্রিলের বার্বিকিউ চিকেন, ডাল, ভাত, গোস্তের রেজালা আর পিঠালির আস্বাদসহ নানা খেলাধুলায় ব্যস্ত থেকেছে অংশগ্রহণকারিরা।

বনভোজনে দেশ ট্রেভেলসের স্পনসরে আয়োজিত রাফেল ড্র’তে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় পুরস্কার জিতে নেন যথাক্রমে সীমা, ফারিহা ও মিজান। গান গেয়ে আনন্দ দেন মিজান, শাহজাহান ও নতুন প্রজন্মের সিফাত। বাঁশি বাজিয়ে সবাইকে আকৃষ্ট করেন ওয়াজেদ আলী।

সংগঠক নজরুল ইসলামের সার্বিক পরিচালনায় বনভোজনকে সফল করে তুলতে সার্বিক সহযোগিতা করেছেন শেফালী ইসলাম, রইস উদ্দিন,মিল্টন, সাজেদুল, মমতাজ, শাওন, সুলতান, ওয়াজেদ, শাহজাহান, স্বপন, বাবুল চাকলাদার, রশিদ, ফাতেমা, ফারজিনা প্রমুখ জামালপুর প্রবাসী।

এছাড়া উৎসাহ ও পরামর্শ দিয়ে পাশে ছিলেন সাংবাদিক ও লেখক রুমী কবির এবং সংগঠক ও জামালপুরের জামাই মামুন শরীফ।

অংশগ্রহণকারী জামালপুরবাসি প্রবাসিরা জেলার সকল প্রবাসীদের নিয়ে একই ছাতার নিচে এক্ত্রিত হয়ে সর্বসম্মত সিদ্ধান্তের আলোকে একটি সাংগঠনিক কমিটি গঠনের আহবান জানান, যাতে আগামীতে বনভোজনসহ এই জেলার স্বার্থে আরও ভিন্নমাত্রার গঠনমূলক কর্মসূচী গ্রহণ করা সম্ভব হয়।

বনভোজনে ভিন্ন জেলার আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ব্যবসায়ী ও সংগঠক মাহমুদ রহমান, সংগঠক  জাহাঙ্গীর হোসেন, সাংবাদিক ও দেশি ট্র্যাভেলসের সত্ত্বাধিকারী এ এইচ রাসেল, সংগঠক আরিফ আহমেদ, সংগঠক হাসান চৌধুরী সুহেল প্রমুখ। এছাড়া জামালপুরের প্রবাসীদের মধ্যে ডাঃ হাফিজ, সংগঠক ইলিয়াস হাসান রানা, সংগঠক আবুল হাশেম প্রমুখ পরিচিত মুখের উপস্থিতি ছিল লক্ষণীয়।

Print Friendly, PDF & Email